সালমান নেই , ভালো আছে সামিরা

নিউজফিড ,চট্টগ্রাম ::
বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের তুমুল জনপ্রিয় নায়ক সালমান শাহর রহস্যজনক মৃত্যু হয় ১৯৯৬ সালে। তখন আত্মহত্যা হিসেবে দেখিয়ে পুলিশ অপমৃত্যুর মামলা নথিভুক্ত করলেও তাতে আপত্তি জানায় সালমান শাহর পরিবার। মৃত্যুর পর থেকেই সালমানের বাবা কমরুদ্দীন আহমেদ হত্যার অভিযোগ তোলেন। বাবা কমরউদ্দিনের মৃত্যুর পর সালমানের মা নীলা চৌধুরী ওই মামলা চালাচ্ছেন।

পুত্রবধূ সামিরা হক, চলচ্চিত্র প্রযোজক ও ব্যবসায়ী আজিজ মোহাম্মদ ভাইসহ, ১১ জনকে ছেলের মৃত্যুর জন্য দায়ী করে আদালতে আবেদন করেন নীলা চৌধুরী।

সেই আসামিদের একজন রাবেয়া সুলতানা রুবি সালমানের মৃত্যুর একুশ বছর পর ২০১৭ ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘আত্মহত্যা নয়, হত্যাকাণ্ডের স্বীকার হয়েছিলেন সালমান শাহ এবং তা করিয়েছিলেন তারই স্ত্রী সামিরা ও তার পরিবার।’ এর পর আবারো আলোচনায় আসেন সালমান শাহর স্ত্রী সামিরা হক। বর্তমানে সালমান শাহ’র স্ত্রী রহস্যময়ী নারী সামিরা হক এখন থাইল্যান্ড প্রবাসী।
সালমান শাহ মাত্র ২১ বছর বয়সে তার মা নীলা চৌধুরীর ঘনিষ্ঠ বান্ধবীর মেয়ে সামিরাকে বিয়ে করেন। সেই সময় আলোচিত দম্পতি ছিলেন সালমান-সামিরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় সালমানের মৃত্যুর কয়েক বছর পরই তিনি বিয়ে করেছিলেন মুস্তাক ওয়াইজ নামে এক ব্যবসায়ীকে। তাকে নিয়ে থাইল্যান্ডে পেতেছেন নতুন সংসার। সেই সংসারে তিন সন্তানের জননী সামিরা। বড় ছেলে ও ছোট দুই মেয়ে। এখনো পরিবার নিয়ে থাইল্যান্ডে বসবাস করছেন। সেখানে সামিরার ছোট দুই বোন ফাহরিয়া হক ও হুনায়জা শেখ তাদের স্বামী সন্তান নিয়ে বসবাস করেন।

জানা গেছে, বাংলাদেশে খুব একটা আসেন না। আসলেও এড়িয়ে চলেন মিডিয়া বা কোলাহল। একান্তই নিকটাত্মীয়দের সঙ্গে দেখা করেন। সালমানের মৃত্যুর পর থেকেই নিজেকে সবকিছুর আড়ালে নিয়ে যান তিনি।
গেল বছরের ১৯ সেপ্টেম্বর সামিরার বাবা শফিকুল হক হীরা বেশ কিছু গণমাধ্যমে জানিয়েছিলেন, ‘সালমানের মৃত্যুতে আর সবার মতোই আঘাত পেয়েছিল সামিরা। সবাই নায়ক হারানোর ব্যথায় কেঁদেছিল। আর আমার মেয়ে কেঁদেছিল বিধবা হওয়ার যন্ত্রণায়। সেই কষ্ট কেউ বোঝার আগেই তাকে নিয়ে নানা রকম অপবাদ ছড়ানো হলো। যাক, সবার দোয়ায় সামিরা এখন ভালো আছে। স্বামী-সন্তান নিয়ে তার সুখের সংসার।

সেই মন্তব্যে সামিরার বাবা আরও জানিয়েছেন চমকপ্রদ এক তথ্য। সালমানের মৃত্যুদিনে নাকি কারও সঙ্গেই কোনো কথা বলেন না সামিরা।নিজের মতো করে চুপাচাপ থাকেন। সালমানের মৃত্যু তিনিও মেনে নিতে পারেননি। মানতে পারেন না ‘সালমানের সাবেক স্ত্রী’ শব্দটিও।

উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর ইস্কাটনের নিজ ফ্ল্যাটে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিলো তার লাশ। বিষয়টিকে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করলেও সালমান শাহ’র ভক্তরা সেটা মেনে নেননি। বিভিন্ন সময় অনেকেই দাবী করেছেন সালমান শাহকে খুন করা হয়েছে। সালমানের মা নীলা চৌধুরী অভিযোগ করেন, সামিরার সঙ্গে বিতর্কিত ব্যবসায়ী আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের অবৈধ সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল এবং এ দু’জন মিলে সালমানকে হত্যা করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here